State Government Trending News 

আলিপুরদুয়ারে ৫৯২ অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী ও অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্ক: অঙ্গনওয়াড়ি কর্মী ও অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার পদে ৫৯২ জনকে নিচ্ছে আলিপুরদুয়ারের বিভিন্ন ব্লকে। নিয়োগ করা হবে বিভিন্ন প্রোজেক্টের অধীনে। নিচের যোগ্যতার মহিলা প্রার্থীরাই কেবলমাত্র আবেদন করতে পারবেন। প্রার্থীকে অন্তত ৬ মাস সংশ্লিষ্ট ব্লকের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে।
ব্লক অনুযায়ী শূন্যপদ: আলিপুরদুয়ার-ওয়ান অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 26/ICDS/APD-1): মোট শূন্যপদ ৯টি।
আলিপুরদুয়ার-ওয়ান মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে— অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 25/ICDS/APD-1): মোট শূন্যপদ ২৭টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 24/ICDS/APD-1): মোট শূন্যপদ ১৪টি।
আলিপুরদুয়ার-টু অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 40/APD-II/ICDS): মোট শূন্যপদ ২৩টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 38/APD-II/ICDS): মোট শূন্যপদ ৩টি।
আলিপুরদুয়ার-টু মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 39/APD-II/ICDS): মোট শূন্যপদ ৪০টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 37/APD-II/ICDS): মোট শূন্যপদ ৫টি।
আলিপুরদুয়ার আর্বান আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 30/APD-U/ICDS): মোট শূন্যপদ ৮টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 27/APD-U/ICDS): মোট শূন্যপদ ১টি।
ফালাকাটা অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 34/ICDS/FKT): মোট শূন্যপদ ২১টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 36/ICDS/FKT): মোট শূন্যপদ ১১টি।
ফালাকাটা মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 33/ICDS/FKT): মোট শূন্যপদ ১৯টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 35/ICDS/FKT): মোট শূন্যপদ ৬টি।
কালচিনি অ্যাডিশনাল-ওয়ান আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 26/KIDS): মোট শূন্যপদ ১০৪টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 23/KIDS): মোট শূন্যপদ ৬টি।
কালচিনি অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 25/KIDS): মোট শূন্যপদ ১৬টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 22/KIDS): মোট শূন্যপদ ২টি।
কালচিনি মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 24/KIDS): মোট শূন্যপদ ৯৬টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 21/KIDS): মোট শূন্যপদ ১৩টি।
কুমারগ্রাম মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 19/ICDS/KMG): মোট শূন্যপদ ২৫টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 18/ICDS/KMG: মোট শূন্যপদ ১০টি।
কুমারগ্রাম অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 21/ICDS/KMG): মোট শূন্যপদ ২৩টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 20/ICDS/KMG): মোট শূন্যপদ ৮টি।
মাদারিহাট অ্যাডিশনাল আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 240/ICDS/MDT): মোট শূন্যপদ ৫০টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 238/ICDS/MDT): মোট শূন্যপদ ৭টি।
মাদারিহাট মেইন আইসিডিএস প্রোজেক্টের অধীনে– অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার (নোটিশ নং: 239/ICDS/MDT): মোট শূন্যপদ ৪৩টি। অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার (নোটিশ নং: 237/ICDS/MDT): মোট শূন্যপদ ২টি।
অঙ্গনওয়াড়ি ওয়ার্কার পদের ক্ষেত্রে— কোনও স্বীকৃত বোর্ড থেকে দশম শ্রেণি পাশ প্রার্থীরা আবেদন করতে পারেন। অঙ্গনওয়াড়ি হেল্পার পদের ক্ষেত্রে— কোনও স্বীকৃত বোর্ড থেকে অষ্টম শ্রেণি আবেদন করতে পারেন। উভয় ক্ষেত্রেই উচ্চতর যোগ্যতার প্রার্থীরাও আবেদনের যোগ্য।
বয়স হতে হবে ১-১-২০২০ তারিখের হিসেবে বয়স ১৮ থেকে ৪৫ বছরের মধ্যে। অর্থাৎ জন্মতারিখ হতে হবে ১-১-১৯৭৫ থেকে ১-১-২০০২ সালের মধ্যে)। সংরিক্ষিত শ্রেণির প্রার্থীরা সরকারি নিয়ম অনুযায়ী বয়সের ছাড় পাবেন।
যে গ্রামপঞ্চাতের জন্য আবেদন করবেন প্রার্থীকে সেই গ্রামপঞ্চাতের স্থায়ী বাসিন্দা হতে হবে বা অন্তত ৬ মাস সেখানে বসবাস করে থাকতে হবে। রেসিডেন্সিয়াল সার্টিফিকেট নোটিফিকেশনের দিনের ৬ মাস আগের মধ্যে হতে হবে, তার থেকে পুরোনো সার্টিফিকেট গ্রহণযোগ্য হবে না। উপযুক্ত কর্তৃপক্ষ থেকে কাস্ট সার্টিফিকেট না থাকলে সংরক্ষণের সুবিধা পাবেন না।
প্রার্থী বাছাই হবে লিখিত পরীক্ষা এবং মৌখিক পরীক্ষার মাধ্যমে। লিখিত পরীক্ষায় থাকবে মাতৃভাষায় ১৫০টি শব্দের মধ্যে এসে লেখা (১৫ নম্বর), অ্যারিথমেটিক (২০ নম্বর), নিউট্রিশন/ পাবলিক হেলথ/ স্ট্যাটাস অফ উইমেন (১৫ নম্বর), ইংলিশ ল্যাঙ্গুয়েজে/ সিম্পল ট্রান্সলেশন (২০ নম্বর), জেনারেল নলেজ (২০ নম্বর) বিষয়ের প্রশ্ন। এরপর হবে ১০ নম্বরের মৌকিত্ক পরীক্ষা। পরীক্ষার সিলেবাস সম্পর্কে বিস্তারিত জানা যাবে নিচে বলা ওয়েবসাইট থেকে।
আবেদন করবেন অনলাইনে http://www.eapplyicdsalipurduar.in ওয়েবসাইটের মাধ্যমে। এইজন্য প্রার্থীর একটি বৈধ ইমেল আইডি ও মোবাইল নম্বর থাকা চাই। অনলাইন আবেদন করতে বসার আগে নিজের পাসপোর্ট মাপের ছবি ও সই স্ক্যান করে রাখবেন। দরখাস্ত করে সময় আপলোড করতে হবে। এবার যাবতীয় তথ্য সঠিকভাবে যাচাই করে সিস্টেম জেনারেটেড অ্যাপ্লিকেশন ফর্মের প্রিন্ট নিয়ে নিজের কাছে রাখবেন। পরে প্রয়োজন হবে। ফালাকাটা, কালচিনি এবং মাদারিহাট ব্লকের ক্ষেত্রে আবেদন করা যাবে আগামী ২৩ ফেব্রুয়ারির মধ্যে এবং বাকি গ্রামপঞ্চায়েতগুলির ক্ষেত্রে আবেদন করা যাবে ২৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে।

Related posts

Leave a Comment