chokingMiscellaneous 

হাইমলিখ কৌশল প্রয়োগে কন্যার প্রাণ বাঁচালেন ইঞ্জিনিয়ার

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্ক: হাইমলিখ কৌশল অবলম্বন করে ২ বছরের মেয়ের জীবন বাঁচালেন সল্টলেকের ইঞ্জিনিয়ার। ডাক্তার হেনরি জে হাইমলিখ আবিষ্কৃত পদ্ধতি অবলম্বন করে বহু মানুষের প্রাণ বাঁচানো সম্ভব তা আবারও প্রমাণিত হল। বিশেষজ্ঞ চিকিৎসকরা বলছেন, হঠাৎ শ্বাসনালিতে খাবার বা অন্য কিছু আটকে শ্বাস রোধ হলে মাত্র ৪ মিনিটের মধ্যে একজন মানুষের মৃত্যু হবে সম্ভাবনা তৈরি হয়।

সূত্রের খবর, সোশ্যাল মিডিয়ায় বিষ্ণুপুরের স্কুল শিক্ষকের ভিডিও থেকে শিক্ষা নিয়ে হাইমলিখ কৌশল প্রয়োগ করে ২ বছরের কন্যাকে বাঁচালেন সল্টলেকের এক ইঞ্জিনিয়ার। ইঞ্জিনিয়ার অনির্বাণ দাস এবিষয়ে জানিয়েছেন, হাইমলিখ কৌশল যে সত্যিই জীবনদায়ী, তা আমি আমার মেয়ের ক্ষেত্রে প্রয়োগ করে বুঝতে পারলাম। আমার স্ত্রী কাপে করে জল খাওয়ানোর সময় ২ বছরের মেয়ে প্রযুক্তির বিষম লাগে। মাথায় ফুঁ দিয়ে, কপালে ও গায়ে হাত বুলিয়েও কিছু হয়নি। ক্রমে সে নিস্তেজ হয়ে পড়ছিল। কোথাও বলছিল না। স্ত্রী কান্নাকাটি শুরু করতেই আমিও ভয় পেয়ে যায়। মেয়ের শ্বাসনালিতে জল ঢুকে গিয়েছে বুঝতে পেরে আমার হাইমলিখ কৌশলের কথা মনে পড়ে।

এবিষয়ে ওই ইঞ্জিনিয়ার আরও জানিয়েছেন, সোশ্যাল মিডিয়ায় দেখা হাইমলিখ কৌশল অনুযায়ী মেয়ের পেটে প্রথমে হাত দিয়ে চাপ দিই। তাতেও সুবিধা হয়নি। এরপর সোফার হাতলের উপর মেয়ের পেট রেখে উপুড় করে শুইয়ে পিঠের দিক থেকে দু’হাতে জোর করে চাপ দিতেই মুখ দিয়ে কিছুটা জল বেরিয়ে আসে। মেয়ে কাঁদতে শুরু করে। তারপর সে কথা বলে। আপৎকালীন চিকিৎসার জন্য প্রতিটি মানুষের হাইমলিখ কৌশল শিখে রাখা জরুরি বলেও জানিয়েছেন অনির্বাণবাবু। এমনকী বিষ্ণুপুরের স্কুল শিক্ষককে ভিডিওটি আপলোড করার জন্য ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

জেনে নিন হাইমলিখ কৌশলের সঠিক পদ্ধতি:
https://www.youtube.com/watch?v=QtqLAS5rgGQ

Related posts

Leave a Comment