irfan khanMiscellaneous 

ইরফান খানের প্রয়াণে গভীর শোকে দেশ

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্ক: প্রয়াত হলেন অভিনেতা ইরফান খান। শোকস্তব্ধ দেশ। তাঁর জন্ম ১৯৬৭ সালের ৭ জানুয়ারি। সূত্রের খবর, মুম্বাইয়ের কোকিলাবেন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। ২০১৮ সালে সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে ইরফান জানিয়েছিলেন, তিনি নিউরোএন্ডোক্রাইনে আক্রান্ত। এই দুরারোগ্য ব্যাধির জন্য তাঁকে পাড়ি দিতে হত বিদেশেও। দীর্ঘ সময় ধরেই বিদেশে চিকিৎসা চলে তাঁর।

ইরফানের মৃত্যুর খবরে শোকপ্রকাশ করেছেন অমিতাভ বচ্চন। একটি টুইটে বিগ-বি জানিয়েছেন, “ইরফান খানের মৃত্যু সংবাদ পেলাম। অত্যন্ত দুঃখের খবর। এই খবর পেয়ে আমি বিচলিত। একজন অবিশ্বাস্য প্রতিভার অধিকারী, সুভদ্র সহকর্মী, সিনেমা জগতে বিরাট অবদান রাখা ব্যক্তিত্ব বড় তাড়াতাড়ি আমাদের ছেড়ে চলে গেলেন। বিরাট শূন্যতা তৈরি হল।”

PIKU

পাশাপাশি, কেন্দ্রীয় তথ্য ও সম্প্রচার মন্ত্রী প্রকাশ জাভড়েকর, দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল, রাজস্থানের মুখ্যমন্ত্রী অশোক গহলৌত সহ চলচিত্র জগতের তাঁর একাধিক গুণমুগ্ধরা শোকজ্ঞাপন করেছেন। দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরবিন্দ কেজরিওয়াল একটি টুইটে শোকপ্রকাশ করে জানালেন ইরফান খানের মৃত্যুর খবর পেয়ে আমি শোকাহত। তিনি আমাদের সময়ের সবচেয়ে ব্যতিক্রমী অভিনেতা ছিলেন। তাঁর কাজ চিরকাল আমাদের মনে থাকবে। তাঁর আত্মার শান্তি কামনা করি।

LIFE OF A PI

“চানক্য”, “ভারত এক খোঁজ”, “সারা জাঁহা হামারা”, “চন্দ্রকান্তা” প্রভৃতি টিভি সিরিয়ালে জনপ্রিয়তার সঙ্গে কাজ করেছেন ইরফান। ১৯৮৮ সালে “সালাম বোম্বে” ছবিতে প্রথম তাঁকে অভিনয় করতে দেখা যায়। এরপর ধীরে ধীরে “কমলা কি মউত”, “এক ডক্টর কি মউত”, “দ্য গোল”, “ঘাত”, “পান সিং তোমর”, “ব্ল্যাকমেল”, “পিকু” প্রভৃতি ছবিতে সুনামের সঙ্গে অভিনয় করেছেন তিনি।

এছাড়া ২০০৮ সালে “স্ল্যাম ডগ মিলিওনিয়ার”, ২০১২ সালে “লাইফ অফ পাই”, ২০১৫ সালে “জুরাসিক ওয়ার্ল্ড” এবং ২০১৮ সালে “পাজেল” প্রভৃতি ইংরেজি ছবিতেও তাঁকে সুনামের সঙ্গে অভিনয় করতে দেখা গেছে। ২০১৭ সালে বাংলাদেশ ও ভারতের যৌথ উদ্যোগে তৈরি “ডুব” ছবিতেও তিনি অসাধারণ অভিনয় করেছেন। “জঙ্গল বুক” ছবির হিন্দি ভার্সানেও “বালু” (ভাল্লুক)-এর চরিত্রে তিনি ভয়েসও দিয়েছিলেন। তাঁর শেষ ছবি ছিল “আঙ্গরেজি মিডিয়াম”। অঙ্গ

Receive Padma Shri award from Hon’ble former President Smt. Pratibha Patil

উল্লেখ্য, সম্প্রতি অনলাইনে “আঙ্গরেজি মিডিয়াম” মুক্তি পেয়েছে। নতুন করে আর কোনও ছবির কাজে হাত দেননি তিনি, এমনটাই জানা যায়। ইরফান খান ২০০৪ সালে প্রথম ফিল্মফেয়ার অ্যাওয়ার্ড পান। এরপর জি সিনে অ্যাওয়ার্ড, স্টারডাস্ট সহ একাধিক পুরস্কারে ভূষিত হন ইরফান। ২০১১ সালে পান পদ্মশ্রী সম্মান। তাঁর আকস্মিক মৃত্যতে দেশ গভীর শোকে।

Related posts

Leave a Comment