fan, ac, coolerMiscellaneous 

এসি-কুলার ও ফ্যানের ব্যবহারে নিয়মবিধির নির্দেশিকা জারি

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্ক: কোভিড-১৯ সংক্রমণ মোকাবিলায় বাড়ি, কাজের জায়গা ও স্বাস্থ্য পরিষেবা কেন্দ্রগুলিতে এসি-কুলারের নিয়মবিধি সংক্রান্ত একটি নির্দেশিকা জারি করেছে কেন্দ্র। ইন্ডিয়ান সোসাইটি ফর হিটিং রিফ্রেজারেটিং এন্ড এয়ার কন্ডিশনার ইঞ্জিনিয়ার্স (আইএসএইচআরএই) ওই নির্দেশিকা তৈরি করেছে বলে জানা যায়।

নিয়মবিধিতে বলা হয়েছে, এয়ার কন্ডিশনিংয়ের ক্ষেত্রে ঘরের তাপমাত্র ২৪-৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডের মধ্যে রাখতে হবে। আপেক্ষিক আর্দ্রতা থাকতে হবে ৪০-৭০ শতাংশের মধ্যে। যদি আর্দ্র পরিবেশ হয়, সেক্ষেত্রে তা কমাতে তাপমাত্রা থাকতে হবে ২৪ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে। আবার শুস্ক পরিবেশে তাপমাত্রা ৩০ ডিগ্রি সেন্টিগ্রেডে দিয়ে ফ্যান চালিয়ে বায়ু চলাচল বাড়াতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। আবার শুষ্ক পরিবেশে আপেক্ষিক আর্দ্রতা ৪০ শতাংশের নিচে নামতে দেওয়া যাবে না।

এক্ষেত্রে বলা হয়েছে, ঘরের এসির ঠান্ডা হাওয়ার রিসার্কুলেশনের সঙ্গে যেন সামান্য খোলা জানালার মাধ্যমে বাইরের টাটকা বাতাস ভিতরে ঢোকার সুযোগ পায়। পাশাপাশি স্বাভাবিক পদ্ধতিতে ভিতরের হাওয়াও যেন বের হতে পারে। এক্ষেত্রে আরও বলা হয়েছে, ফ্যান ফিল্টার ইউনিটের মাধ্যমে টাটকা হওয়া যদি ঘরে ঢোকানোর ব্যবস্থা করা যায়, তাহলে বাইরের ধুলোর প্রবেশ রোখা সম্ভব।

ইভাপোরেটিভ কুলার্সের ক্ষেত্রে বাইরের বাতাস ঢুকিয়ে অতি অবশ্যই যেন বায়ু চলাচল বজায় রাখে। আবার এটির ট্যাঙ্ক প্রত্যেকদিন পরিষ্কার ও সংক্রমণমুক্ত রাখা জরুরি। জল ফেলে নতুন জল ভরা দরকার। তবে পোর্টেবল ইভাপোরেটিভ কুলার্সের ব্যবহার না করাই ভাল, নির্দেশিকায় জানানো হয়েছে। ফ্যানের ক্ষেত্রে জানালা আংশিক খুলে রেখে তবেই ফ্যানের ব্যবহার করা দরকার। এগজস্ট ফ্যান থাকলে তা চালু রাখা জরুরি। এক্ষেতে বায়ু চলাচল ভাল হবে।

Related posts

Leave a Comment