Sundarban MangroveMiscellaneous 

এবার বাদাবনের প্রাচীরও রক্ষা করতে পারেনি আম্ফান তাণ্ডব

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্ক : বাদাবনও এবার বাঁচাতে পারেনি সুন্দরবনকে। সরকারি হিসাব অনুযায়ী জানা গিয়েছে, সুন্দরবনের ৩ হাজার ৯৯১ কিলোমিটার জঙ্গলের ভয়ানক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। যার মধ্যে প্রায় ৪৫ শতাংশ বাদাবন ধ্বংস হয়েছে। আম্ফান ঘূর্ণিঝড় রীতিমতো চ্যালেঞ্জের মুখে ঠেলে দিয়েছে সুন্দরবনকে।

সুন্দরবন বিশেষজ্ঞরা বলছেন, অতীত দিনের মতো এবার এই সাইক্লোন সেভাবে এঁটে উঠতে পারেনি বাদাবনের প্রাচীর। তার কারণে ঝড়ের ঝাপটা গভীর জঙ্গল পর্যন্ত ঢুকে গিয়ে আঘাত করেছে বহু গাছকে। একসময় এই বাদাবনই রক্ষাকর্তা ছিল।

সুন্দরবনের গবেষক-বিশেষজ্ঞ এবং বন বিভাগের কর্তাব্যক্তিরা জানিয়েছেন, আম্ফান বয়ে যাওয়ার পর জঙ্গলে মাইলের পর মাইল সুন্দরী, কেওড়া, বাইন, ধুধুল-সহ বিভিন্ন পাতা পুড়ে গিয়েছে। শুকিয়ে গিয়েছে ডালপালাও। প্রশাসন ও বন বিভাগ আশঙ্কা করছে, যেভাবে জঙ্গলের ক্ষতি হয়েছে, তার ফলে আগামী দিনে বড় সাইক্লোন হলে সুন্দরবনের বাদাবনের সুরক্ষাবলয় কোনও কাজে আসবে না। তা সরাসরি ফিরে এসে ঝড়ের দাপট দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলার উপর দিয়ে এসে আছড়ে পড়বে কলকাতা শহরের বুকে। কলকাতার ক্ষয়-ক্ষতি হওয়ার সম্ভাবনা থেকেই যাচ্ছে।

সুন্দরবনের গবেষক-বিশেষজ্ঞদের সূত্রে আরও জানা গিয়েছে, ২০০৯ সালে আয়লার তাণ্ডবে সুন্দরবনের দুই জেলায় ভয়ঙ্কর ক্ষতিগ্রস্ত হয়। কলকাতার উপর সেই ঝড়ের কিছুটা ধাক্কা কিছুটা লেগেছিল। আয়লার তাণ্ডব সেই সময় বাদাবনের প্রাচীর রুখে দিয়েছিল বলে ওই ঘূর্ণিঝড়ের বিস্তার সেভাবে হয়নি। “আম্ফান”-এর পর সুন্দরবনের এই প্রাচীর কার্যত মুখ থুবড়ে পড়েছে।

এ প্রসঙ্গে সুন্দরবনের স্থানীয় বাসিন্দাদের বক্তব্য, সাগর, কাকদ্বীপ, পাথরপ্রতিমা, ক্যানিং, বাসন্তী, গোসাবা, কুলতলি থেকে জয়নগর, সব জায়গায় নদী লাগোয়া বিঘের পর বিঘে বাদাবন কেটে পরিষ্কার করে দেওয়া হয়েছে। অনেক জায়গায় চিংড়ি ও কাঁকড়া চাষের লোনা জলের ভেড়ি গড়ে উঠেছে।

Related posts

Leave a Comment