Secandary StudentCourse Education Alerts Knowledge Update Miscellaneous 

মাধ্যমিকের পর পড়বেন কোন বিভাগ নিয়ে

কাজকেরিয়ার অনলাইন নিউজ ডেস্কঃ এবছর মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা তোমরা নিশ্চয়ই হয়তো ভাবছ, এবার কোন বিষয় নিয়ে পড়ব। অথবা কোন বিভাগ নিয়ে পড়াশোনা করলে ভবিষ্যতে ভালো চাকরি বা সাফল্য পাওয়া যাবে।চলো তাহলে এবার জেনে নেওয়া যাক কোন বিষয় বা কোন বিভাগে পড়াশোনা করলে চাকরি বা সাফল্যের পথ আরও প্রশস্ত হয়ে উঠবে।

মাধ্যমিকের পর তিনটি শাখা রয়েছে- আর্টস, কমার্স ও সায়েন্স। এই তিনটি দিকের মধ্যে কোন দিকে গেলে আমরা কি কি করতে পারব, তা একটু সংক্ষেপে জেনে নেওয়া যাক।

প্রথমে আসি আর্টস বা কলা বিভাগে। এই বিভাগের বিষয়গুলি হল- বাংলা, ইংরেজি, হিন্দি, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, ইতিহাস, ভূগোল, মনস্তত্ত্ব, সংস্কৃত, সমাজবিদ্যা, ফিজিক্যাল এডুকেশন, পরিবেশবিদ্যা ও কম্পিউটার অ্যাপ্লিকেশন ইত্যাদি।

আমরা যারা আর্টস নিয়ে পড়াশোনা করি তাঁদের অনেকেরই মনে হয়-আমরা হয়তো অনেক পিছিয়ে পড়া ছেলে-মেয়ে। তবে এটি সম্পূর্ণ ভুল ধারণা। নিজের মনে আত্মবিশ্বাস রাখতে হবে যে আমরাও কোনো দিকে কম নই। মনে করতে হবে আমরাও পারি। এই বিষয় নিয়ে পড়লে শুধু যে শিক্ষকতা বা অধ্যাপনার কাজ করতে হবে তা ভাবার কোন প্রয়োজন নেই।

কলা বিভাগের একটি বিষয় হল ইতিহাস যা পড়ার পর আর্কিওলজি বা প্রত্নতত্ত্ব নিয়ে পড়া। এক্ষেত্রে আর্কিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়ায় কাজ করা যায়। এছাড়া ভূগোলের মতো বিষয়ে অনেক কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয় রয়েছে। যাতে অর্থনীতি ও বণিক প্রয়োজন হয়। তাই উচ্চমাধ্যমিক ভূগোলের সঙ্গে দুটি বিষয় সঙ্গে রাখা প্রয়োজন।

এরপর কলা বিভাগের অপর একটি বিষয় হল ভূগোল। এই বিষয় নিয়ে স্নাতক হওয়ার পর ছাত্র-ছাত্রীরা কার্টোগ্রাফার হিসেবে কাজ শুরু করতে পারে। এর জন্য স্নাতকোত্তর কোর্স করার দরকার হয় না। এই কার্টোগ্রাফাররা মানচিত্র তৈরি কাজের সঙ্গে যুক্ত। এছাড়াও স্নাতকোত্তর ডিগ্রির পর জিওগ্রাফিক্যাল ইনফরমেশন সিস্টেম বা আইএস অফিসার পদের জন্য আবেদন করা যেতে পারে। পাশাপাশি আবহাওয়া দফতরেও কাজের সুযোগ রয়েছে।

কলা বিভাগের ক্ষেত্রে অর্থনীতিও একটি বিষয়।যা নিয়ে পড়াশোনা করলে শুধুমাত্র শিক্ষকতা বা অধ্যাপনার কাজ নয়, রিজার্ভ ব্যাঙ্ক অফ ইন্ডিয়া থেকে শুরু করে বড় বড় সরকারি এবং বেসরকারি ব্যাঙ্কে উচ্চপদে চাকরির সুযোগ রয়েছে।

অনেকে আবার আইন নিয়ে পড়াশোনা করেন তবে আইন নিয়ে পড়াশোনা করলে যে শুধুমাত্র ওকালতি করতে হবে তার কোনও মানে নেই। বড় বড় ল ফার্মে কাজ শিখে কোনও বড় কোম্পানিতে আইনগত দিকগুলি দেখাশোনা করলে তাতে অনেক টাকা উপার্জন করা সম্ভব।

এতক্ষণ আমরা আর্টসের বিষয় সম্পর্কে জানলাম। কমার্স নিয়ে পড়লে বর্তমান পরিস্থিতিতে চাকরি পাওয়ার সম্ভাবনা কতটা তা নিয়ে অনেকের চিন্তা রয়েছে।
আমরা সবাই জানি চাটার্ড অ্যাকাউন্ট্যান্ট হতে গেলে কমার্স নিয়ে পড়তেই হবে।

অন্যদিকে উচ্চমাধ্যমিকে কমার্স নিয়ে পড়ার পর ৩ বছরের বিকম ডিগ্রি কোর্স করলে বড় মাল্টিন্যাশনাল কোম্পানিতে উচ্চপদে চাকরির সুযোগ রয়েছে।

পাশাপাশি বিকম ডিগ্রি কোর্স করার জন্য এখন ব্যাচেলর অফ ব্যাঙ্কিং অ্যান্ড ইন্সুরেন্স কো: ব্যাচেলর অফ ফিনান্সিয়াল মার্কেটিং-এর অপশন থাকে যেগুলি নিয়ে পড়াশোনা করলে ক্যাম্পেসিং- এর মাধ্যমে ভাল চাকরি পাওয়া যেতে পারে।

কমার্সের সাথে ফিনান্স থাকলে যে কোনও কোম্পানির ফিনান্স অ্যানালিস্ট, সার্টিফায়েড ফিনান্স প্ল্যানার, ফিনান্স ম্যানেজার, ফিনান্স কন্ট্রোলার ইত্যাদি পদে কমার্সের শিক্ষার্থীরা অগ্রাধিকার পাবে।

এবার আমরা জানবো সায়েন্সের বিষয় সম্পর্কে।
অনেকে মনে করেন আমি ডাক্তার বা ইঞ্জিনিয়ার হব। আবার অনেকে আইটি সেক্টরে কাজ করেন। এছাড়াও গণিত, পদার্থবিদ্যা, রসায়ন বিদ্যা, প্রাণিবিদ্যা, উদ্ভিদবিদ্যা ইত্যাদি বিষয়গুলির স্নাতক এবং স্নাতোকত্তোর স্তরে উচ্চশিক্ষার দিকেও এগিয়ে যাওয়া যায়। উচ্চশিক্ষার পরে অনেক চাকরির পথ প্রসারিত রয়েছে।

বর্তমান সময়ে খুব গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হল-জীববিদ্যা ও উদ্ভিদবিদ্যা। বিশেষ করে উদ্ভিদবিদ্যা বা বোটানি ইন্ডিয়ান ফরেস্ট সার্ভিস বা ওয়েস্টবেঙ্গল সার্ভিসের জন্য আবশ্যিক।

ফুড টেকনোলজি অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। এক্ষেত্রে সরাসরি স্নাতক স্তরে ভর্তি হওয়া যায়। যেকোনও বড় খাদ্য প্রস্তুতকারক সংস্থায় কাজ করা যেতে পারে।

Related posts

Leave a Comment